1. harezalbaki@gmail.com : Harez :
  2. khondakar.mithu@gmail.com : Shakil Ahmed : Shakil Ahmed
  3. focusbd.info@gmail.com : Mithu :
শুক্রবার, ১১ জুন ২০২১, ০৯:২৯ পূর্বাহ্ন

১ লাখ মানুষকে করোনা ইন্স্যুরেন্সে নিবন্ধন

প্রতিবেদক
  • সংস্করণ : রবিবার, ২৬ জুলাই, ২০২০
  • ৪২ বার দেখা হয়েছে

করোনা কেয়ার সার্ভিস প্রকল্পের আওতায় ডিজিটাল হেলথকেয়ার সলিউশনস এক লাখ মানুষকে করোনা ইন্স্যুরেন্সে নিবন্ধন করার পাশাপাশি ডক্টর চ্যাট, ডক্টর ভিডিও কল এবং করোনা সিম্পটম চেকারের মতো বিভিন্ন সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা এবং সংক্রমণের হার প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাওয়ায়, জনগণের হাসপাতাল গিয়ে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা নেওয়া অত্যন্ত জটিল এবং ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। এই সমস্যার সমাধান করতেই ডিজিটাল হেলথকেয়ার সলিউশনস (ডিএইচ) চালু করেছে ‘করোনা কেয়ার সার্ভিস’ যার অধীনে একজন রোগী চ্যাট, কল বা ভিডিও কলের মাধ্যমে খুব সহজেই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা এবং হেলথ ক্যাশব্যাক এর সুবিধা নিতে পারবেন, ঘরে বসেই।

ডিএইচ এক লাখ মানুষকে করোনা ইনসিওরেন্সের আওতায় এনেছে, এবং একই সাথে ২৫ হাজারেরও বেশি রোগীদের ডক্টর চ্যাট এবং ৫ হাজারেরও বেশি রোগীদের ডক্টর ভিডিও কলের মাধ্যমে এখনো স্বাস্থ্য সেবা সরবরাহ করে চলেছে। এমবিবিএস ডাক্তার দ্বারা পরিচালিত এই ডাক্তারি পরামর্শ খুব সহজেই https://care.dh.health/ এ ক্লিক করে পাওয়া যায়।

যেহেতু সাধারণ জ্বর এবং কভিড-১৯ এর লক্ষণ গুলো একই রকম, এই নিয়ে কোনো বিভ্রান্তি এড়াতে, যে কেউ খুব সহজেই ডিএইচ এর করোনা সিম্পটম চেকারের মাধ্যমে কয়েকটি খুব সহজ প্রশ্নের উত্তর দিয়েই জানতে পারবে তার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার কোনো ঝুঁকি আছে কিনা এবং প্রয়োজনে টেস্টিং বুথে গিয়ে পরীক্ষা করতে পারেন। এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে চালু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত ২ লাখ ৪৫ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনা সিম্পটম চেকার ব্যবহার করেছেন এবং যথাযথ পরামর্শ পেয়েছেন।

এখন পর্যন্ত করোনা সিম্পটম চেকার বেশি ব্যবহার করেছে গ্রামঞ্চলের মানুষ এবং তার বেশির ভাগ-ই ছিল যশোর, পাবনা, কেরানীগঞ্জ, শিবচর, নাটোর এবং সিরাজগঞ্জের মানুষ।

করোনা কেয়ার সার্ভিসের আওতায় থাকা সব সেবার মধ্যে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল করোনা ইন্সুরেন্স এবং ইতিমধ্যে তার প্রথম বীমা দাবি পরিশোধ করা হয়ে গিয়েছে।

করোনা ইন্সুরেন্সের আওতায় রোগীরা পাচ্ছেন ক্যাশ কাভারেজ –

  • যদি কোভিড-১৯ টেস্টের ফলাফল পজিটিভ হয় তবে আইসোলেশনে থাকার জন্য- ২০০০ টাকা
  • হাসপাতালে ভর্তি হতে হলে- ৫০০০ টাকা
  • এবং লাইফ ইন্সুরেন্স হিসেবে পেয়েছেন- ২০,০০০ টাকা

ডিজিটাল হেলথকেয়ার সলিউশন বিশ্বাস করে এই সার্ভিসগুলোর মাধ্যমে তারা বাংলাদেশের সাধারণ জনগণের জন্য নতুন ধরনের এবং নিরাপদ স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহ করতে সক্ষম হবে এবং একই সাথে রোগীদের তাদের নিজ বাড়িতেই সেবা প্রদানের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা খাতের ওপর চাপ কমিয়ে আনতে পারবে।

ডিজিটাল হেলথ কেয়ার সলিউশন সম্পর্কে তথ্য- মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা সবার কাছে পৌঁছানোর জন্য ডিজিটাল হেলথ কেয়ার সলিউশন নতুনত্ব এবং প্রযুক্তির মাধ্যমে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর